সারা বিশ্ব আজ ছোট্ট অনুজীবীর কাছে অসহায়। থমকে গেছে উন্নয়নের চাকা। শিক্ষা ক্ষেত্রে ও পড়েছে তার প্রভাব। স্কুল কলেজ সব বন্ধ। পড়ুয়ারা ও ঘরবন্দি। কি হবে তাদের পড়াশুনা ,কোনো রকমে ক্লাসে উঠে গেলেই তো আর হলো না।  কোন বিষয়ে কতখানি অভিজ্ঞতা তা একটা বড়ো বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। 

 

                   উত্তাল এই পরিস্থিতিতে সবাই যখন করোনার ভ্যাকসিনের খবরে ব্যস্ত আর ব্যস্ত সেই সময়ে IIM Calcutta র সহযোগিতায় Krishworks Technology ছাত্র /ছাত্রীদের শিক্ষা নিয়ে কাজ করে চলেছে নিরন্তর। শুরুটা হয়েছিল দীর্ঘদিন আগেই ,করোনার আবহে আরো জোরদার হয়ে ওঠে সেই প্রচেষ্টা। 

 

                   বিজ্ঞান বিভাগে ছাত্র /ছাত্রীদের দুর্বলতা থাকে সবচেয়ে বেশি। আমাদের ভাবনাটা শুরু হয় সেখান থেকে। সপ্তম,অষ্টম ও নবম শ্রেণীর ছাত্র /ছাত্রীদের অংকের মেধা যাচাই করার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করি। আসল কারণটা ছিল এই যে কিছুদিন পর এরা সবাই নতুন ক্লাসে উঠবে। 

 

                 সমস্ত পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে আমরা আয়োজন করেছি ALL BENGAL MATHS OLYMPIAD। ক্লাস ৭, ৮ এবং ৯ ICSE, CBSE, ও WBBSE বোর্ডের ছাত্র ছাত্রীরা এই  ALL BENGAL MATHS OLYMPIAD দিতে পারবে | কিন্তু কিভাবে সেই পরীক্ষা দেওয়া যাবে ? Slato App আমাদের লোকডাউনের সময়ে এক অভিনব আবিষ্কার। যে app এর সাহায্যে ছাত্র /ছাত্রীরা খুব সহজে ঘরে বসেই পরীক্ষা দিতে পারবে। শুধু পরীক্ষাই নয় থাকছে স্কলারশিপ জেতার এক দারুন সুযোগ। পরীক্ষাটি হবে সম্পূর্ণ  মাল্টিপল চয়েস টাইপের। বাংলা ও English ও English  ভাষাতেই এই পরীক্ষাটি হবে। 

 

              কিন্তু কবে হবে এই পরীক্ষা ? আগামী ১৯শে  ডিসেম্বর সারা বাংলা জুড়ে আমরা পরীক্ষার ডালি নিয়ে তোমাদের কাছে পৌঁছে যাবো SLATO APP এর মাধ্যমে। সবাই তৈরী থেকো কিন্তু। 

 

All Bengal Maths Olympiad এ  ভাগ নিতে আজি Register করুন । রেজিস্ট্রেশনের শেষ তারিক হলো ১৬ওই ডিসেম্বর ২০২০ ।

Maths Olympiad - Free Registration Form

সপ্তম থেকে নবম শ্রেণীর অন্তর্গত যেকোনো শিক্ষা পর্ষদের (CBSE, ICSE, WBBSE) পড়ুয়া অল বেঙ্গল ম্যাথস স্কলারশিপ অলিম্পিয়াড-এ অংশগ্রহণ করতে পারে।

 

অল বেঙ্গল ম্যাথস স্কলারশিপ অলিম্পিয়াড হল পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য স্তরীয় একটি প্রতিযোগিতামূলক অংক পরীক্ষা। বাংলার সমস্ত পড়ুয়াদের জন্য তাদের সমতুল্য শিক্ষার্থীদের সাথে প্রতিযোগিতার একটি সুযোগ। 

 

এটি একটি এমসিকিউ ভিত্তিক অংক পরীক্ষা সপ্তম, অষ্টম এবং নবম শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য যাতে তারা ভবিষ্যতের জন্য আগে থেকেই প্রস্তুতি নিতে পারে। প্রশ্নপত্রটি তৈরি করা হয়েছে বাছাই করা কন্সেপচুয়াল ফান্ডামেন্টাল প্রশ্ন দিয়ে, ছাত্র-ছাত্রীদের তাদের যুক্তি, বিশ্লেষণমূলক এবং সমস্যা সমাধানের দক্ষতা প্রমাণ করতে।

 

এছাড়াও, এটি ছাত্র-ছাত্রীদের সময়ের মধ্যে তাদের সমস্যাগুলি সমাধান করতে সাহায্য করে, একটি প্রশ্নের উত্তর দিতে কতক্ষন সময় লাগে সেটা বুঝতে সাহায্য করে। তাদের দক্ষতা ও দুর্বলতা খুজে বের করুন এবং প্রস্তুত করুন জীবনের পরবর্তী পরীক্ষাগুলির জন্য।

রেজিস্ট্রেশন ফিঃ

 

অল বেঙ্গল ম্যাথস স্কলারশিপ অলিম্পিয়াড সকল যোগ্য ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য একটি বিনামূল্যে একটি ওপেন এক্সাম।

 

১. নিজেকে যাচাই করো, অনুশীলন করো এবং প্রস্তুত হও আসল পরীক্ষার জন্য এই পরীক্ষার মাধ্যমে।

২. নিজের শক্তি এবং উন্নতির ক্ষেত্রগুলি বিশ্লেষণ করো।

৩. প্রাথমিক ধারণাগুলি আরও ভাল করে যাচাই করো।

৪. রাজ্য স্তরে অন্যান্য শিক্ষার্থীদের সাথে নিজের যোগ্যতা বিচার করো। 

৫. ভবিষ্যতের প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার প্রস্তুতির ক্ষেত্রে কি ত্রুটি থাকছে সেগুলো বুঝে যথাপোযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করো।

৬. শতকরা হিসেবে নিজের প্রাপ্ত নম্বর জানো, প্রতিটি বিষয় এর পুঙ্খানুপুঙ্খ বিশ্লেষণ এবং উন্নতির উপায় জানো। 

৭. এটি একটি এমসিকিউ পরীক্ষা সপ্তম, অষ্টম এবং নবম শ্রেণীর পড়ুয়াদের জন্য, যাতে তারা ভবিষ্যতের পরীক্ষাগুলির জন্য প্রস্তুতি নিতে পারে এবং নিজেকে যোগ্য করে তুলতে সক্ষম হয়।

৮. একটি স্টেট লেভেল র‍্যাঙ্ক অর্জন করো।

General mathematics, logical reasoning, mathematical reasoning, algebra, geometry, mensuration, number system, Patterns, Mirror/Water Images, Blood Relations, Odd one out, Speed and Distance Problems, Clocks, Venn Diagrams, Coding-Decoding, Dates and Calendars, Direction sense and distances, data handling and everyday mathematics.

প্রতিটি সঠিক উত্তরের জন্য প্রশ্নপত্রে দেওয়া নির্দিষ্ট নম্বর অনুসারে নম্বর প্রদান করা হবে। ভুল উত্তরের জন্য কোন নেগেটিভ মার্কিং বা নম্বর কাটা যাবে না।

ভাষা

প্রশ্নপত্রটি বেঙ্গলি এবং ইংলিশ মিডিয়ামের স্টুডেন্টদের জন্য যথাক্রমে বাংলা এবং ইংরাজি ভাষাতে থাকবে।

স্টুডেন্টরা পরীক্ষা শুরু করার আগে নিজেদের পছন্দের ভাষা বেছে নিতে পারবে। 

 

পরীক্ষার দিন এবং সময়ঃ

 

১৯ ডিসেম্বর

সকাল ১১.৩০ মিনিট

 

পরীক্ষার মাধ্যমঃ

স্লেটো অ্যাপ এর মাধ্যমে পরীক্ষাটি পরিচালনা করা হবে এবং বাড়ি থেকেই পরীক্ষা দেওয়া যাবে। প্রশ্নপত্রটি এমসিকিউ প্রশ্নের আদলে থাকবে। পরীক্ষায় লেখার জন্য যাবতীয় নির্দেশাবলী পরীক্ষায় রেজিস্ট্রেশন এর পরে স্টুডেন্টদের দিয়ে দেওয়া হবে। 





পুরষ্কার এবং শর্তাবলীঃ

 

১. বৃত্তির টাকা পরীক্ষার্থীদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সরাসরি পৌঁছে যাবে। মাইনরদের ক্ষেত্রে তাদের অভিভাবক একমাত্র এই বৃত্তির টাকাটি নিতে পারেন। কিন্তু অভিভাবক এবং পরীক্ষার্থীর সম্পর্কের পর্যাপ্ত নথি দান করা বাধ্যতামূলক। পরীক্ষার্থীদের তাদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের একটি বাতিল চেক দান করতে হবে, যেখানে বৃত্তির টাকাটি জমা হবে। চেক এর যাবতীয় তথ্য ফলাফল ঘোষণার পরেও জানানো যেতে পারে। 

২. প্রথম স্থানাধিকারী পাবে ২০০০ টাকার নগদ বৃত্তি

   দ্বিতীয় স্থানাধিকারী পাবে ১০০০ টাকার নগদ বৃত্তি

   তৃতীয় স্থানাধিকারী পাবে ৫০০ টাকার নগদ বৃত্তি

৩. শুধুমাত্র সপ্তম, অষ্টম এবং নবম শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীরা এই বৃত্তির যোগ্য হবে। ভেরিফিকেশন এর জন্য স্টুডেন্ট এর স্কুলের আইডি কার্ড এবং আধার কার্ড বাধ্যতামূলক।

৪. পরীক্ষার্থীর নাম এবং অন্যান্য তথ্য পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণার ক্ষেত্রে জনসমক্ষে প্রকাশ করা হতে পারে।

৫. বিজয়ীদের প্রশংসাপত্র পুরষ্কার বিতরণের আগে সংগ্রহ করা হবে।

৬. বৃত্তি গ্রহণের তালিকাভুক্ত হওয়ার জন্য কমপক্ষে ৮৫% নম্বর পাওয়া বাধ্যতামূলক।

৭. যেকোনো পরিস্থিতিতে, পরীক্ষার বিজয়ী ঘোষণা বা বৃত্তি দানের তালিকা নির্বাচনের ক্ষেত্রে স্লেটো-র সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত বলে মনে করা হবে। 

৮. ক্রিশওয়ার্কস (স্লেটো)-এ কর্মরত কোনো কর্মী বা ইন্টার্ন এর পরিবারের অথবা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে পরিচিত কোনো ব্যাক্তি এই বৃত্তির যোগ্য হবে না।

যদি স্লেটো মনে করে, কোনো পরীক্ষার্থী পরীক্ষাতে বেশী নম্বর পাওয়ার জন্য কোনো অনুপযুক্ত ব্যাবস্থা গ্রহণ করেছে তাহলে স্লেটো সেই পরীক্ষার্থীর দেওয়া পরীক্ষা অযোগ্য মনে করতে পারে। এবং এই কারনবশত তার প্রাপ্ত স্থান এবং নম্বর ঘোষণা করা হবে না। 

 

শর্তাবলী – ক্রিশওয়ার্কস টেকনোলোজি অ্যান্ড রিসার্চ ল্যাব প্রাইভেট লিমিটেড :

বৃত্তির ক্ষেত্রে স্লেটোর সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত। দি অল বেঙ্গল মক মাধ্যমিক কম্পিটিটিভ এক্সাম স্লেটোর আভ্যন্তরীণ নিয়মের উপর নির্ভরশীল। আবেদনকারী এবং আবেদনকারীর অভিভাবক সম্মত হন যে, আবেদনকারী বা আবেদনকারীর অভিভাবক এর স্লেটোর ওপর নির্ভরশীল হওয়ার ফলে ঘটিত কোনো ক্ষয়ক্ষতির জন্য স্লেটো-কে কোনোভাবে দায়ী করা হবে না। আবেদনকারী এবং আবেদনকারীর অভিভাবক সহমত পোষণ করছেন, আবেদনকারীর প্রদত্ত তথ্য স্লেটো নিজের আনুকূল্যে ব্যাবহার করতে পারে।

Leave a Comment